মশা তাড়াবে টিভি !!(Anti-Mosquito TV) 3


tv will away mosquito

ভাবুন তো একবার; মানুষ সৃষ্টির সবচেয় সুন্দর ,শ্রেষ্ঠ ও ক্ষমতাবান জীব হয়েওে একটি ক্ষুদ্র প্রতঙ্গ মশার ভয়ে মশারীর ভিতরে লুকায় বা নানা ধরনের কত আয়োজন করে।বলা হয়ে থাকে মশা মারতে কামান ধাগা।মশা আমাদের প্রতিটা গুরুত্বপূর্ণ সুন্দর সময়ে বিরক্তি না দিলে বুঝি মশার ভাত হজম হয় না। টিভি দেখা, ঘুমানো,পড়াশুনা সহ দৈনন্দিন যত কাজ আছে সব জায়গায় মশা মামা হাজির আপনাকে তার ‍আদর করে দেয়ার জন্য।আর এই আদরের সাথে আশে বকশিশ হিসেবে আছে ডেঙ্গু,ম্যালেরিয়া সহ জিকা ভাইরাসের মত মারাত্নক ভাইরাসের সংক্রমণ। কত গল্পই তো আছে লোক মুখে মশা তাড়োনোর জন্য নানা আয়োজনের।আজ মূল কথায় যাওয়ার আগে আপনাদের একটা গল্প শুনাতে চাই।

শহরের ব্যস্ততম রাস্তায় এক ফেরীওয়ালা  মাইকিং করে বেড়াচ্ছে ভাই সব আমার কাছে মশা তাড়ানোর তাবিজ।এই তাবিজ ব্যবহার করলে ১০০% নিশ্চিত আপনি মশার কামড় থেকে মুক্তি পাবেন।যথা নিয়েমে সবাই কিনছে এই তাবিজটা।বেটার ভালোই লাভ হচ্ছিল।একজন মানুষ তাবিজ কিনার পর বাসায় গিয়ে মনের খেয়ালে খুলে দেখতে চাইলেন।কি এমন আছে তাবিজে !! খুলে দেখলেন একটা চিরকুট যাতে লেখা আছে মশার ওষুধ মশারী!!!

কেমন লাগছে আপনাদের।নিশ্চই আপনাদের ভালো লেগেছে।আবার অনেকে বিরক্ত হচ্ছেন মূল কথা না বলে খালি আজাইরা প্যাচাল করছি।কেউ বিরক্ত হলে আন্তরিক ভাবে দুঃখিত। তো চলুন দেখা যাক আজকের আলোচনায়।

আমাদের নিত্য জীবনের অন্যতম প্রধান সঙ্গী হলো একটা মজার বাক্স যার নাম টেলিভিশন বা টিভি সেট।বর্তমান যুগে এমন কোনো মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে যিনি িএকবারও টিভি দেখেন নি।টিভিতে মজার,রোমাঞ্জকর আর মন ভুলানো মুভি দেখছেন বা টান টান উৎজনাকর খেলা দেখছেন এমন সময় মশা মামার কামড় খাওয়ার এই বিরক্তিকর অভিজ্ঞতা নিশ্চই আপনার আছে।আজ আলোচনা এই মশার কামড় নিয়ে।

আপনাদের মশার কামড়ের বিড়ম্বনা থেকে মুক্তি দিতে বিশ্ব বিখ্যাত ইলেকট্রনিক্স ব্র্যান্ড নিয়ে এল মশার দুশমন মসকুইটু এওয়ে টিভি।এই টিভিতে ব্যবহার করা হয়েছে জনপ্রিয় মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েড প্রযুক্তি।এতে আছে এক ধরণের শব্দ তরঙ্গ যা মশাকে  আপনার রুম থেকে তাড়াবে।তবে এ ব্যাপারে অনেকে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন।এলজি তাদের টিভিতে যুক্ত করেছে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি নাম যার আলট্রা সনিক স্পীকার ।যা থেকে বের হবে উচ্চ তরঙ্গের শব্দ।যা মানুষের শ্রবণ ক্ষমতার বাইরে।কিন্তু এই শব্দ তরঙ্গ মশার জন্য বিরক্তিকর।যার কারণে আপনার টিভি দেখার সময় মশা আর জ্বালাতন করবে না।বাজারে ছাড়ার আগে এলজি কর্তৃপক্ষ যাবতীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে নিয়েছে।তাই  এই টিভির কার্যক্ষমতা নিয়ে ক্রেতাদের দুঃচিন্তা মুক্ত থাকতে অনুরোধ করেছে , এলজি কর্তৃপক্ষ।

তবে এলজি দীর্ঘমেয়াদে এই কার্যক্ষমতা কেমন হবে সে সব বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু জানায় নি।নির্মাতার বলেছেন এলাকাভেদে এর কার্যক্ষমতা তারতম্য হতে পারে।আর মসকুইটু  এওয়ে চালু অবস্থায় হালকা শব্দ হতে পারে তা জানিয়ে রেখেছেন এলজি কর্মকর্তারা।

ভারতে এই জনপ্রিয় টিভির ৩২” এর দাম ধরা হয়েছে ২৬৯০০ ইন্ডিয়ান রুপি  আর ৪২” এর দাম ধরা হয়েছে ৪৭৫০০ ইন্ডিয়ান রুপি।

তো এবার আপনি থাকবেন সুরক্ষিত টিভি দেখার সময়।আর শুনতে হবে না মশার ঘুম তাড়ানি গান আর খেতে আর মশার মিষ্টি মধুর আদর।

বর্তমান যুগ নতুন নতুন প্রযুক্তির উৎকর্ষতার যুগ।মানুষের প্রয়োজনে উদ্ভাবিত হয় নিত্য নতুন প্রযুক্তি।তেমনি একটা প্রযুক্তি হলো এলজির এই অভিনব টিভি।এই প্রযুক্তির ধারণা ব্যবহার করা হয়েছে আরো নানা ধরনের নিত্য ব্যবহার্য ইলেকট্রনিক্স পন্যতে।যেমন বলা যায়-মসকুইটু ্ এওয়ে সিলিং ফ্যান,মসকুইটু  এওয়ে এসি,মসকুইটু  এওয়ে ড্রিম লাইট সহ আরো অনেক কিছু।এই অভিনব প্রযুক্তি আপনাকে রাখুক মশামুক্ত।থাকুন ‍নিরাপদ আর সুরক্ষিত।

অনেক ধন্যবাদ এতক্ষন আমার সাথে থেকে পড়ার জন্য।আজ বিদায় নিতে চাই।কেমন লাগলো আপনাদের কমেন্ট করে জানাবেন।আর ভালো লাগলে শেয়ার করতে ভুলবেন না।আল্লাহ হাফেজ।